জামায়াত-শিবিরের ঔদ্ধত্য

1

জামায়াতে ইসলামী ও এর ছাত্রসংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের ঘোষিত রাজনৈতিক আদর্শ ও নীতি নিয়ে বিতর্ক বরাবরই ছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক কালে তারা যেসব কর্মকাণ্ড করছে, তাতে সংগঠন দুটি স্পষ্টত নিজেদের সন্ত্রাসী হিসেবে জাহির করেছে। এর আগে রাস্তায় ভাঙচুর কিংবা জ্বালাও-পোড়াওয়ের ঘটনাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দমন-পীড়নের প্রতিক্রিয়া বলে দাবি করে আসছিল তারা। কিন্তু গত শনিবার মিছিলের নামে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা কোনো কারণ ছাড়াই রাজধানীর মেরুল বাড্ডা এলাকায় নির্বিচারে গাড়ি ভাঙচুর করেন।
আরও দুর্ভাগ্যজনক যে অন্যান্যের মধ্যে তাঁদের সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন কয়েকজন স্প্যানিশ নাগরিক, যাঁরা তৈরি পোশাক কেনার আদেশ দিতে বাংলাদেশে এসেছিলেন। গতকাল প্রথম আলোর প্রথম পাতার ছবিটিতে দেখা যায়, আক্রান্ত হওয়ার পর তাঁরা গাড়ি থেকে বেরিয়ে রুদ্ধশ্বাসে ছুটছেন। বাংলাদেশের জন্য এর চেয়ে লজ্জাকর ঘটনা কী হতে পারে?
জামায়াত-শিবির এই ঔদ্ধত্য কোথায় পেল? উচ্চ আদালতের নির্দেশে দলটির নিবন্ধন বাতিল হওয়ার পরও তাদের মধ্যে ন্যূনতম অনুশোচনা দেখা যায়নি। বরং তারা আরও ধ্বংসাত্মক হয়ে উঠেছে। এখনই কঠোর হাতে এদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। যারা এসব সন্ত্রাসী ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তাদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিকল্প নেই।
কিন্তু অত্যন্ত দুর্ভাগ্যের বিষয়, এ ধরনের ঘটনার জন্য যারা দায়ী, তাদের ধরার বদলে গয়রহ মামলা করতেই পুলিশের বেশি উৎসাহ লক্ষ করা যায়। এ রকম একটি সংগঠনকে বিএনপির মতো দায়িত্বশীল দলটি কীভাবে কাছে টানতে পারে? তাহলে কি ধরে নিতে হবে যে বিএনপির শক্তিতেই জামায়াত ও এর ছাত্রসংগঠনটি দেশের প্রচলিত আইন না মানার ধৃষ্টতা দেখিয়ে যাচ্ছে? ভবিষ্যতে তাদের ওপর যে এই কালসাপ ছোবল মারবে না, তার নিশ্চয়তা কী?
এসব ঘটনায় প্রমাণিত হয় যে জামায়াত-শিবির কেবল মৌলবাদের ঝান্ডা উড়িয়ে ক্ষান্ত হয়নি, তারা বাংলাদেশ রাষ্ট্রের আদর্শ ও মৌলনীতিরও বিরোধী। রাষ্ট্রীয় সম্পদ ও জননিরাপত্তার স্বার্থেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের পাশাপাশি রাজনৈতিক সংগ্রাম জারি রাখা জরুরি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

The Weeklydesh newspaper